Blog

শব্দ

কোথা থেকে যেন একটা মৃদু বিষণ্ণ  শব্দ প্রায়শই ভেসে আসে
শিশিরের আড়মোড়, হেমন্তের মর্মর কিংবা স্রোতস্বিনীর কলকল ছাপিয়ে।
কোথায় যেন একটা সূক্ষ্ম শোকার্ত শব্দ প্রায়শই শুনতে পাই
নাগরিক কোলাহল, বৈষয়িক ঠুংঠাং কিংবা সাংঘর্ষিক দামামা কাঁপিয়ে।

শব্দের সুতো ধরে এগিয়ে যে যাব তারও কোন জো নেই। জন্মের হৈচৈ!
সবাই একটু চুপ কর! একটু দাঁড়াও! কোত্থেকে শব্দটা ভেসে আসছে একটু শুনি।
কারও সময় নেই, এমনকি ইচ্ছেটাও।
কোথাকার কোন শব্দের পিছে ছুটছে পাগল!

বাতাসে শুধু অর্থের কচকচ, অস্ত্রের ঝনঝন,
ঊর্ধ্বতনের হুঙ্কার আর উন্নাসিকের শীৎকার!
ওহে বোকাভু! যেভাবে বাক্য শেষ হলে নির্দয়ভাবে দাঁড়ি টানে দাম্ভিক লেখনী
সেভাবে অনাহুত শব্দকে গলা টিপে মেরে ফেলা আজও কি শেখো নি?

এই যা! মিলিয়ে গেল শব্দটা। ম্রিয়মাণ সুর, তুমি আবার এস প্রবল শক্তি নিয়ে!
মনে রেখ, তোমাকে বাঁধবে তাই কেউ কেউ দিগন্তের ধারে বসে আছে ব্যগ্র হয়ে!
তোমার ধ্বনি কর্ণকুহরে ঢেলে কুয়াশা হব বলে আমিও ঠায় বসে আছি।
হে বিশুদ্ধ স্বর! ধরা দাও। ধরা দাও।